ঢাকা ০৩:০৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

গেম খেলতে বাঁধা দেয়ায় কিশোরের আত্মহত্যা

আব্দুল বাশির, চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে: চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে মোবাইলে গেম (পাবজি) খেলতে বাঁধা দেয়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে এক কিশোর আত্মহত্যা করেছে। রোববার (১১ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে রহনপুর পৌর এলাকার পুরাতন প্রসাদপুর মহল্লাতে এ ঘটনা। নিহত কিশোর কাবির আলীর ছেলে শাহ আলম(১৭)

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে এবং নিহতের বাবা কাবির আলীর বক্তব্যে জানা গেছে , রোববার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে বাড়িতে শাহ আলম ঘুম থেকে উঠে মোবাইলে গেম খেলছিলো। তখন তার মা মোবাইলটি জোর করে হাত থেকে কেড়ে নেয়। তার কিছুক্ষণ পর নিজ ঘরের শয়ন কক্ষে ফ্যানের সাথে গলায় গামছা পেঁচিয়ে কিশোর আত্মহত্যা করে। পরে পরিবারের লোকজন জানতে পেরে পুলিশকে খবর দিলে ঘটনাস্থলে পুলিশ উপস্থিত হয়।

নিহতের বাবা আরও জানান, আমার ছেলেটি অনেক জেদি। একটু বকাঝকা করলে না খেয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থাকে। সে অষ্টম শ্রেণীতে লেখাপড়ার পাশাপাশি এক বছরের বেশী সময় ধরে স্থানীয় একটি ইলেকট্রনিক দোকানে কাজ করছে। আর আমি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের পিয়ন হিসাবে কর্মরত রয়েছি। বাড়ি থেকে সকালে গিয়ে সন্ধায় ফিরে আসি। তার মা ছেলেকে শাসন করে থাকে।

গোমস্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমাস আলী সরকার জানান, গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যার ঘটনার খবরটি পেয়ে ঘটনাস্থলে উপ-পরিদর্শক (এসআই) মাহবুব উপস্থিত আছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে। আমিও ঘটনাস্থলের উদ্দেশে রওনা হচ্ছি। আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

উল্লেখ্য, গত পরপর তিনদিনে তিনটি আত্নহত্যার ঘটনা ঘটেছে। যার ফলে সচেতন মহলের মধ্যে এ নিয়ে চরম উদ্বেগ দেখা দিয়েছে।

Tag :
জনপ্রিয়

গাজীপুর ঐতিহাসিক রাজবাড়ী মাঠের অমর একুশে বইমেলার সমাপনী অনুষ্ঠান

গেম খেলতে বাঁধা দেয়ায় কিশোরের আত্মহত্যা

প্রকাশের সময় : ০৯:৪৮:৩৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১১ সেপ্টেম্বর ২০২২

আব্দুল বাশির, চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে: চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে মোবাইলে গেম (পাবজি) খেলতে বাঁধা দেয়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে এক কিশোর আত্মহত্যা করেছে। রোববার (১১ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে রহনপুর পৌর এলাকার পুরাতন প্রসাদপুর মহল্লাতে এ ঘটনা। নিহত কিশোর কাবির আলীর ছেলে শাহ আলম(১৭)

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে এবং নিহতের বাবা কাবির আলীর বক্তব্যে জানা গেছে , রোববার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে বাড়িতে শাহ আলম ঘুম থেকে উঠে মোবাইলে গেম খেলছিলো। তখন তার মা মোবাইলটি জোর করে হাত থেকে কেড়ে নেয়। তার কিছুক্ষণ পর নিজ ঘরের শয়ন কক্ষে ফ্যানের সাথে গলায় গামছা পেঁচিয়ে কিশোর আত্মহত্যা করে। পরে পরিবারের লোকজন জানতে পেরে পুলিশকে খবর দিলে ঘটনাস্থলে পুলিশ উপস্থিত হয়।

নিহতের বাবা আরও জানান, আমার ছেলেটি অনেক জেদি। একটু বকাঝকা করলে না খেয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থাকে। সে অষ্টম শ্রেণীতে লেখাপড়ার পাশাপাশি এক বছরের বেশী সময় ধরে স্থানীয় একটি ইলেকট্রনিক দোকানে কাজ করছে। আর আমি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের পিয়ন হিসাবে কর্মরত রয়েছি। বাড়ি থেকে সকালে গিয়ে সন্ধায় ফিরে আসি। তার মা ছেলেকে শাসন করে থাকে।

গোমস্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমাস আলী সরকার জানান, গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যার ঘটনার খবরটি পেয়ে ঘটনাস্থলে উপ-পরিদর্শক (এসআই) মাহবুব উপস্থিত আছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে। আমিও ঘটনাস্থলের উদ্দেশে রওনা হচ্ছি। আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

উল্লেখ্য, গত পরপর তিনদিনে তিনটি আত্নহত্যার ঘটনা ঘটেছে। যার ফলে সচেতন মহলের মধ্যে এ নিয়ে চরম উদ্বেগ দেখা দিয়েছে।